৪-১০ বছর বয়সী শিশু আছে এমন অভিভাবকদের মাঝে আমরা একটা জরিপ চালিয়েছিলাম কিছুদিন আগে। জরিপে অভিভাবকদের আমরা জিজ্ঞেস করেছিলাম নিচের প্রশ্নটি।

আপনার সন্তানের ভবিষ্যতের জন্য কোন বিষয়টি আপনি বেশি জরুরি মনে করেন? 

 শতকরা ৬০ ভাগ অভিভাবক বলেছেন তারা মনে করেন স্কুলের পড়াশুনার চেয়ে শিশুর ‘Creativity & Problem-Solving Skill’ বেশি গুরুত্বপূর্ণ। ২৩ ভাগ অভিভাবক মনে করেন পড়াশুনার পাশাপাশি Extra-curriculur Activity সাথে যুক্ত থাকা কেবল পড়াশুনার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। Light of Hope আয়োজিত জরিপে এমন তথ্যই উঠে এসেছে। গত ২৩-২৪ নভেম্বরে Kids Time Fair এ আসা অভিভাবক এবং অনলাইনে অভিভাবকদের মধ্যে এই জরিপ চালিয়েছিল Light of Hope.

শিশুর মধ্যে সৃজনশীলতার গুণ থাকা খুব গুরুত্বপূর্ণ মনে করেন ৯০ ভাগ অভিভাবক।  

জরিপে আরও উঠে এসেছে শতকরা ৯০ ভাগ অভিভাবক মনে করে তাদের শিশুদের মধ্যে সৃজনশীলতার গুণটি থাকা খুব গুরুত্বপূর্ণ। ৬৫ ভাগ অভিভাবকের সবচেয়ে বড় চাওয়া যে তাদের শিশুরা বড় হয়ে একজন ভালো মানুষ হিসাবে গড়ে উঠুক।

 

কেবল ঢাকা শহরেই ২০ লক্ষ অভিভাবক আছে যাদের শিশুদের বয়স ৩-১০ বছর বয়সের মধ্যে, যাদের শিশুরা স্কুলে যাচ্ছে বা আগামী ১ বছরের মধ্যেই যাওয়া শুরু করবে। তরুণ এবং নতুন অভিভাবকদের মধ্যে অনেকেই এখন বুঝতে শুরু করেছেন যে কেবল স্কুলে বা পরীক্ষায় ভালো ফলাফলের মাধ্যমে নিজেদের সন্তানদের ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করা আর সম্ভব নয়।

জরিপে অংশ নিতে ক্লিক করুন 

World Bank এর একটি রিপোর্ট বলছে যে যেসব শিশুরা এখন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ছে তাদের শতকরা ৮০ ভাগ শিশু ভবিষ্যতে এমন একটি কাজে বা প্রফেশনে ঢুকবে যার অস্তিত্বই এখন নেই। বর্তমান শিক্ষাপদ্ধতি আমাদের শিশুদের ভবিষ্যতের জন্য প্রস্তুত করতে ব্যর্থ হচ্ছে। ভবিষ্যতের পৃথিবীতে যেসব কাজগুলো তৈরি হতে যাচ্ছে তার জন্য যে স্কিলগুলো আমাদের শিশুদের মধ্যে এখনই লাগবে সেগুলো হল Creativity, Problem-Solving, Critical Thinking, Emotional Intelligence.

কিন্তু আমাদের স্কুলগুলো কি এই স্কিলগুলো আমাদের শিশুদের মধ্যে তৈরি করা নিয়ে কাজ করছে? যেসব অভিভাবকরা এই বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত, তাদের অনেকেই এখন স্কুলের পাশাপাশি অন্য Alternative খুঁজছেন।

আমরা যখন বাংলাদেশে Kids Time শুরু করি তখন আমাদের লক্ষ্যই ছিল কিভাবে আমরা এই ৪-১০ বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে এই স্কিলগুলো বাড়াতে পারি। আনন্দের মাধ্যমে, খেলার মাধ্যমে এবং আগ্রহের সাথে কাজ করতে করতে যেন একটা শিশু নিজেদের মধ্যে এই স্কিলগুলো আপনাআপনি তৈরি করে ফেলতে পারে। শিশুদের মধ্যে ভবিষ্যতের স্কিলগুলো তৈরি করার জন্য সবচেয়ে বড় উদ্যোগ এখন পর্যন্ত আমাদের Kids Time.

আমাদের Kids Time ঢাকা এবং চট্টগ্রামে মোট ৫ টি সেন্টার চালাচ্ছে যেখানে ইতিমধ্যে এক হাজারেও বেশি শিশু বিভিন্ন কোর্সে অংশ নিয়ে তাদের সৃজনশীলতা এবং সমস্যা সমাধানের দক্ষতা বাড়াচ্ছে।

আগ্রহী অভিভাবকরা চাইলে Kids Time সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে পারেন নিচের ছবিতে ক্লিক করে। 

Kids Time সেন্টারগুলোতে ভর্তি চলছে জানুয়ারি ২০১৯ সেশনের জন্য।

 

আমাদের Kids Time সেন্টারগুলোতে আপনার শিশুকে ভর্তির জন্য রেজিস্ট্রেশন করুন নিচের লিঙ্কে।

Registration Link

আমাদের সেন্টারগুলোর ম্যাপ পাবেন এই লিঙ্কে

আরও বিস্তারিত জানতে কল করতে পারেন এই নাম্বারেঃ ০১৭৭১৫৮৮৪৯৪